স্বচ্ছ লাল শাড়িতে তুমুল ভাইরাল পল্লবী শর্মা

ছোট্ট পোশাকে, অপরূপ ফিগারে রীতিমতো অনুরাগীদের শরীরে আগুন লাগিয়েছেন বলিউডের বিভিন্ন অভিনেত্রীরা। সেই চিত্রে এখন পিছিয়ে নেই টলি – কুইনেরাও।

উন্মুক্ত অ;ন্তর;ঙ্গ দেখিয়ে একের পর এক ছবি ভাইরাল হয়েছে বঙ্গ ইন্ডাস্ট্রির সুন্দরীদের। সেই তালিকায় নাম লিখিয়েছেন বাংলা ধারাবাহিকের বিভিন্ন নায়িকারা, যেখানে ছিল অভিনেত্রী মনামী থেকে শুরু করে অনেক নায়িকারা।

তাদের শরীরের উষ্ণতা দেখতে তাদের অনুরাগীরা বিভিন্ন সময়ে ভিড় জমিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ার অলিগলিতে। সেই তালিকায় একজন নতুন নাম নিযুক্ত হয়েছে তিনি হলেন, অভিনেত্রী পল্লবী শর্মা।

দর্শকদের চেনার সুবিধার্থে জানিয়ে রাখি তিনি হলেন, স্টার জলসার জনপ্রিয় ধারাবাহিক ‘কে আপন কে পর’ পরিবারের নায়িকার প্রধান নায়িকা ‘জবা’।

মনে আছে জবাকে। মাত্র কিছুদিন আগেই শেষ হয়েছে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা ‘কে আপন কে পর’ ধারাবাহিকটি। যে সিরিয়ালটির প্রানকেন্দ্রই ছিল জবা অর্থাৎ পল্লবী শর্মা।

কিন্তু তিনি এখন কি করছেন, সিরিয়াল তো শেষ, কী জানতে ইচ্ছে করে না? ঠিক ধরেছেন আজ তিনিই আমাদের আলোচ্য বিষয়। অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি কিন্তু মডেলও বটে।

অন্যান্য অভিনেত্রীদের মতোন তিনিও কিন্তু ইনস্টাগ্রামে বেশ জনপ্রিয়। প্রায় ৩০ হাজার ফলোয়ারস তাঁর। সম্প্রতি তিনি একটি ছবি পোস্টিয়েছেন নিজের ইনস্টাগ্রাম হ্যান্ডেলে। যা দেখে আট থেকে আশির চোখ আটকে গিয়েছে।

না কোনো বোল্ড ছবি নয়, সম্পূর্ণ বাঙালিআনাতেই মুখ করেছেন আপামর জনতাকে। ছবিতে দেখা যাচ্ছে তিনি একটি পাতলা কমলা বর্ণের সিল্কের কাপড় পড়েছেন, সঙ্গে তাঁর স্লিভলেস ব্লাউজ, খোলা চুল, ন্যুড মেক-আপে।

উফ! দেখে পুরো লাগছে সে;ক্সি বং। কমলা শাড়ীতে নিজেক মুড়ে পোজ দিচ্ছেন পুরো বোল্ড এক্সপ্রেশানে। দেখে পুরো ক্লিন বোল্ড হয়ে গিয়েছেন তার অনুরাগীরা।

ধারাবাহিকে জবাকে লাগত পুরো একটি বাঙালি বধূরূপে। আধুনিকতার ছোঁয়া ছিল না তাঁর ধারাবাহিক কস্টিউমে। কিন্তু এ যেন অন্য জবা।

নিজেকে পুরো মুড়ে ফেলেছেন আধুনিকতায়। ছবিগুলি পোস্ট হওয়া মাত্র পছন্দের সংখ্যা অতিক্রম করেছে প্রায় পাঁচ হাজার।

তবে তাঁর জীবন কাহিনী শুনলে আপনি অবাক হয়ে যাবেন। এক সংবাদমাধ্যমের সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছিলেন, স্টার জলসা-র ‘কে আপন কে পর’-অভিনেত্রী পল্লবী শর্মার জীবন, তাঁর অভিনীত চরিত্র জবার সঙ্গে অনেকটা মিলে যায়।

বাবা-মা-কে হারিয়েছেন অনেকটা অল্প বয়সে। তার পরে শুরু হয় একা থাকার সংগ্রাম। সবকিছু হাসিমুখে সহ্য করে, এগিয়ে চলেছেন এখনও তিনি।

তিনি বলেন, ‘ছোট থেকে অনেকটা স্ট্রাগল করে বড় হয়েছি, তাই আমার সঙ্গে জবার পার্সোনালিটি মিশেছে, তাদের অনেকেই বলে আমি বয়সের তুলনায় অনেক বেশি ম্যাচিওরড।

জবা চরিত্রটা করতে সেটা আমাকে অনেকটা হেল্প করেছে, অভিনেত্রী হওয়ার জন্য কোনও সংগ্রাম সেভাবে কিছু করতে হয়নি। আমি মনে করি, ভগবান যখন কারও থেকে কিছু কেড়ে নেন, তখন তাকে অন্য কোনও ভাবে পুষিয়ে দেন।’

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *