স্ত্রীকে বিক্রি করে স্মার্টফোন, রেস্তরাঁয় ভালমন্দ খাবার

বিয়ের এক মাস পর স্ত্রীকে বিক্রি করে দেওয়ার অভিযোগ উঠল এক নাবালকের বিরুদ্ধে। পরিবারের লোকের অভিযোগ পেয়ে ওই তরুণীকে উদ্ধার করেছে ওড়িশা পুলিশ। অভিযুক্ত নাবালককে গ্রেফতার করে জুভেনাইল আদালতে তোলা হয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, ১৭ বছরের ওই নাবালকের বাড়ি ওড়িশার বালাঙ্গির জেলায়। জুলাই মাসে ২৬ বছরের এক তরুণীর সঙ্গে বিয়ে হয় তার।

সামাজিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমেই হয়েছিল সেই বিয়ে। অগস্টে স্ত্রীকে নিয়ে রাজস্থানে কাজে যায় ওই নাবালক। সেখানে একটি ইট কারখানায় কাজ করত সে। অভিযোগ, সেখানে যাওয়ার দিন কয়েক পরেই ৫৫ বছরের এক ব্যক্তির কাছে স্ত্রীকে বিক্রি করে দেয় সে।

পুলিশ জানিয়েছে, এক লক্ষ ৮০ হাজার টাকার বিনিময়ে নিজের স্ত্রীকে বিক্রি করেছিল ওই নাবালক। সেই টাকায় বড় রেস্তরাঁয় ভালমন্দ খাবার খাওয়ার পর একটি স্মার্টফোন কেনে অভিযুক্ত। সম্প্রতি রাজস্থান থেকে ওড়িশায় ফেরে অভিযুক্ত।

সে জানায়, তাকে ছেড়ে অন্য কারও সঙ্গে পালিয়ে গিয়েছেন স্ত্রী। যদিও তাঁর কথা বিশ্বাস হয়নি তরুণীর পরিবারের। তাঁরা বিষয়টি নিয়ে পুলিশে অভিযোগ জানান।

তদন্তে নেমে বালাঙ্গির থেকে পুলিশের একটি দল পৌঁছয় রাজস্থানে। সেখান থেকেই মহিলাকে উদ্ধার করা হয়।

ঘটনা নিয়ে বেলাপাড়া থানার এক অফিসার বলেছেন, ‘‘জিজ্ঞাসাবাদের সময় স্ত্রীকে বিক্রি করে দেওয়ার কথা স্বীকার করেছে ওই নাবালক। স্থানীয়রা ওই মহিলাকে আনতে বাধা দিয়েছিল। বহু কষ্টে আমরা ওই মহিলাকে ফিরিয়ে আনতে সমর্থ হয়েছি।’’ নাবালককে জুভেনাইল আদালতে তুলেছিল পুলিশ। তার পর তাকে সংশোধনাগারে পাঠানো হয়েছে।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *