মুনমুনকে ভাড়া করে আনা হয়েছিলঃ মুনমুনের আইনজীবী

মা;দ;ক পার্টি থেকে শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান খান গ্রেপ্তার হওয়ার পর থেকে এই তারকা সন্তানের সঙ্গে আরও একটি নাম বারবার উচ্চারিত হচ্ছে। তিনি হলেন মুনমুন ধমেচা।

পেশায় মডেল। আরিয়ান তার বন্ধুদের সঙ্গে তিনিও বর্তমানে হাজতে রয়েছেন। কিন্তু ২৩ বছর বয়সী আরিয়ানদের পার্টিতে ৩৯ বছর বয়সী মুনমুন কেন গিয়েছিলেন, তা নিয়ে হইচই চারিদিকে।

সেই বিষয় নিয়ে সংবাদমাধ্যমের কাছে মুখ খুলেছেন তার আইনজীবী আলি কাসিব খান। তার দাবি, আরিয়ান-আরবাজের মতো মুনমুনও গোয়াগামী প্রমোদতরীতে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত ছিলেন না।

তার টিকিটও ছিল না। বলরাম নামে এক ব্যক্তি মুনমুনের টিকিট কেটেছিলেন। তার নামে ঘর ভাড়াও নিয়েছিলেন।

আইনজীবীর কথায়, ‘মুনমুন পেশায় মডেল। পার্টিকে নজরকাড়া করে তুলতে তাকে দাওয়াত করে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। বিনিময়ে তাকে পারিশ্রমিক দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছিল।’

৩৯ বছর বয়সী মুনমুনের আদি বাড়ি ভারতের মধ্যপ্রদেশের সাগর নামে এক ছোট শহরে। ব্যবসায়ী পরিবারের মেয়ে তিনি। মুনমুনের মা প্র;য়াত হয়েছেন গত বছর।

বাবা আলাদা থাকেন। আপাতত দিল্লিতে কর্মরত দাদার সঙ্গেই থাকেন মুনমুন। যদিও মুম্বাইয়ের একাধিক বড় বড় তারকার সঙ্গে ওঠাবসা রয়েছে এই মডেলের।

তবে তার আইনজীবীর দাবি, ‘কাজের ডাক পেলে তবেই মুনমুন মুম্বাইয়ে যেতেন। পার্টিতে যাওয়ার আগে আরিয়ান বা আরবাজ কারও সঙ্গেই আলাপ ছিল না তার। ওই পার্টিতে যাওয়ার সুযোগ পেয়ে তিনি খুশি হয়েছিলেন। সেখানে পৌঁছে দাদাকে ভিডিও কল করে সে কথা জানিয়েছিলেন মুনমুন। পরিবারের কাছ থেকে লুকিয়ে কিছু করেননি তিনি।’

আলি কাসাব আরও জানান, ‘প্রমোদতরীর বাইরে লেখা ছিল, ‘মা;দ;কদ্রব্য নি;ষিদ্ধ’। মুনমুন যখন প্রমোদতরীতে উঠছিলেন, তাদের তল্লাশি হয়েছে। তখন কিছু পাওয়া যায়নি তার কাছে।

কিন্তু বিকাল সাড়ে পাঁচটা নাগাদ বলরাম এবং আরও একটি মেয়ের সঙ্গে নিজের নামে ভাড়া নেওয়া ঘরে ঢোকেন মুনমুন। সেই ঘরের মেঝেতে মা;দকের প্যাকেট পাওয়া গিয়েছিল।’

আলি খানের প্রশ্ন, ‘মুনমুনের ঘরে মা;দক পাওয়ার সময়ে তার সঙ্গেই ছিলেন বলরাম ও অন্য তরুণী। তা হলে এনসিবি শুধু মুনমুনকেই ধরল কেন? ঘরে পড়ে থাকা মা;দ;কের প্যাকেট তো তাদেরও হতে পারে। কিন্তু শুধু মুনমুনকে জেরা করার জন্য আটক করা হয়।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *