পর্দাফাঁস কুকীর্তির ! প’র্ণ‌কান্ডের বিতর্ক এড়াতে কঠিন একটি সিদ্ধান্ত রাজ কুন্দ্রার

চলতি বছরের জুলাই মাসে পর্ণ ফিল্ম বানানোর অপরাধে গ্রেফতার হয়েছিলেন রাজ কুন্দ্রা (Raj kundra)। অবশেষে জামিনে ছাড়া পেলেও বহুদিন তাঁকে দেখা যায়নি জনসমক্ষে।

এমনকি শিল্পা শেঠি (Shilpa Shetty) তাঁর করওয়া চৌথ পালনের ছবি আপলোড করলেও তাতে শুধুমাত্র তাঁর একার ছবি ছিল। নিজের মা সুনন্দা শেঠি (Sunanda Shetty), পুত্রসন্তান ভিয়ান (Viaan) ও কন্যাসন্তান সামিশা (Samisha)-কে নিয়ে শিল্পা বেড়াতে গেলেও রাজকে দেখা যায়নি। তাঁকে দেখা যায়নি শিল্পার নবরাত্রি পালনের সময়েও। এবার সোশ্যাল মিডিয়া থেকেও সরে গেলেন রাজ কুন্দ্রা।

পর্ণোগ্রাফি কান্ডে গ্রেফতার হওয়ার আগে অবধি টুইটার ও ইন্সটাগ্রামে যথেষ্ট সক্রিয় ছিলেন রাজ। কিন্তু গ্রেফতার হওয়ার পর জেল থেকে বেরিয়েই নিজের টুইটার ও ইন্সটাগ্রাম অ্যাকাউন্ট ডিলিট করে দিয়েছেন তিনি।

অপরদিকে আবারও শার্লিন চোপড়া (Sherlyn Chopra) তাঁর ও শিল্পার বিরুদ্ধে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের অভিযোগে এফআইআর দায়ের করেছেন। শার্লিনের মতে, শিল্পা রাজের কর্মকান্ড সম্পর্কে ওয়াকিবহাল ছিলেন।

কিন্তু শিল্পা মুম্বই পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চের জেরার মুখে বলেছিলেন, তিনি জানতেন, তাঁর স্বামী এরোটিকা বানান। কিন্তু রাজের পর্ণোগ্রাফিক কন্টেন্ট বানানোর বিষয়ে কিছুই জানতেন না তিনি।

মার্চ মাসে রাজ কুন্দ্রার পর্ণোগ্রাফি ব্যবসা সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য মুম্বই পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চের আধিকারিকদের জানিয়েছিলেন শার্লিন ও পুনম পান্ডে (Poonam Pandey)।

তাঁদের থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, নতুন মডেল ও অভিনেতা-অভিনেত্রীদের কৌশলে পর্ণ ফিল্মে অভিনয় করতে রাজি করাতে রাজ। তাঁদের অভিনীত কন্টেন্ট আপলোড করা হত ‘হটশটস’ অ্যাপে। পরবর্তীকালে এই অ্যাপের নাম পরিবর্তন করে ‘বলিফেম’ রাখা হয়।

এরপরেই রাজকে গ্রেফতার করে মুম্বই পুলিশ জানতে পারে, রাজের তৈরি করা পর্ণোগ্রাফিক কন্টেন্ট চলে যেত লন্ডনে। সেখানে একটি অ্যাডাল্ট ফিল্ম সংস্থায় প্রচুর টাকা বিনিয়োগ করেছিলেন রাজ।

ওই অ্যাডাল্ট ফিল্ম সংস্থার মালিক প্রদীপ বক্সী (Pradip Bakshi) রাজের বোনের স্বামী। ইতিমধ্যে রাজের বেশ কয়েকটি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের দিকেও নজর রেখেছে মুম্বই পুলিশ। অনুমান করা হচ্ছে, ওই ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টগুলির মাধ্যমে ক্রিকেট বেটিং চালাতেন রাজ।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *