তৃতীয় বিয়ে করছেন আমির খান

বলিউডের মিস্টার পারফেকশনিষ্ট আমির খান। ক্যারিয়ারে আকাশচুম্বী সফলতা পেলেও দাম্পত্য জীবনে ভাগ্য সহায় হয়নি তার। একে একে দুটি দাম্পত্যে ইতি টেনেছেন। এবার তৃতীয় বিয়ের পথে এই অভিনেতা।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, ‘লাল সিং চাড্ডা’ সিনেমা মুক্তির পরই তৃতীয় বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আমির খান।

এখনই বিয়ে করছেন না কারণ তিনি চাইছেন না ব্যক্তিগত কারণে তার সিনেমার ওপর প্রভাব পড়ুক। সাবেক এক সহ-অভিনেত্রীকে বিয়ের পরিকল্পনা করেছেন এই অভিনেতা।

এদিকে দ্বিতীয় স্ত্রী প্রযোজক ও নির্মাতা কিরণ রাওয়ের সঙ্গে দীর্ঘ ১৬ বছরের দাম্পত্যে বিচ্ছেদের সময়ই গুঞ্জন উঠেছিল এক তরুণ অভিনেত্রীর সঙ্গে আমিরের ঘনিষ্ঠতার কারণেই তাদের সংসারে ভাঙন ধরেছে। এবার সেই গুঞ্জনই সত্যি হওয়ার পথে।

জানা গেছে, সেই অভিনেত্রীর নাম ফাতিমা সানা শেখ। যিনি ‘দঙ্গল’ সিনেমায় আমিরের মেয়ের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন।

এরপর ‘থাগস অব হিন্দুস্তান’ সিনেমায় তাকে নায়িকা হিসেবে বেছে নেন আমির। তখনই তাদের মধ্যে ঘনিষ্ঠতা বাড়ে। যদিও আমির কিংবা ফাতিমা কারও পক্ষ থেকেই এসব ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া আসেনি।

ব্যক্তিজীবনে তিনবার প্রেমে ব্যর্থ হয়েছেন এই অভিনেতা। এক অনুষ্ঠানে আমির জানান, ১০ বছর বয়সে তার জীবনে প্রথম প্রেম আসে। কিন্তু তার সেই ভালোবাসা ছিল একতরফা। তিনি প্রতিদিন মেয়েটিকে দেখতেন আর পাগল হতেন।

মেয়েটি সামনে এলেই মুখে কুলুপ এঁটে দাঁড়িয়ে থাকতেন।

তবে ১৬ বছর বয়সে পাশের বাড়ির মেয়ে রীণা দত্তের প্রেমে পড়েন আমির খান। তিনিই প্রথম আমিরের প্রেমে সাড়া দিয়েছিলেন। তাই দেরি না করে রিনাকে বিয়ে করে ঘরে তোলেন এই অভিনেতা।

তবে ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে তার সেই ভালোবাসার ঘর ভেঙে যায়। ২০০২ সালে বিচ্ছেদের পথে হাঁটেন এই দম্পতি।

রিনার সঙ্গে বিচ্ছেদের পর ২০০৫ সালে কিরণ রাওকে বিয়ে করেন আমির। স্ত্রী-সন্তান নিয়ে সুখেই সংসার করছিলেন তিনি। কিন্তু সেই সংসারও টেকেনি। চলতি বছরের ৩ জুলাই বিচ্ছেদের ঘোষণা দিয়েছেন এই অভিনেতা।

দু’জনের সম্মিলিত সিদ্ধান্তে তারা আলাদা হয়েছেন। তবে দাম্পত্য জীবনে বিচ্ছেদ হলেও মাঝে মধ্যেই বিভিন্ন অনুষ্ঠানে একসঙ্গে দেখা যায় তাদের। বিচ্ছেদের সময়ই আমির খান-কিরণ রাও জানিয়েছিলেন, তারা ছেলে আজাদের জন্য সব সময়ই পাশে থাকবেন। আর সে কারণেই হয়তো দুজনকে একসঙ্গে দেখা যায়।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *