ইচ্ছা করে ব্লাউজ সরিয়ে দেখালেন অন্তর্বাস, ব্যপক ভাইরাল শ্রীলেখার ভিডিও

‘স্ট্র্যাপটা খুলে ফেলো, আরও ভাল লাগবে, আরও ভাল বডি শো-অফ করবে’, কিছু দিন আগেই সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন কটূক্তি শুনতে হয়েছিল শ্রীলেখাকে।

পালটা জবাবও দিয়েছিলেন এই ঠোঁটকাটা অভিনেত্রী। এবার অন্তর্বাস নিয়ে আমাদের সমাজে প্রচলিত ট্যাবু ভেঙে ফেলতে মরিয়া শ্রীলেখা।

ব্রে;সিয়ার শরীরের সঙ্গে লেগে থাকা একটা পোশাক, সেটা আড়াল করবার কোনও প্রয়োজন নেই, সেটা বেরিয়ে থাকাটা কখনই লজ্জার নয়- এই বার্তাই দিলেন অভিনেত্রী।

নীতি পুলিশদের কড়া জবাব দিতে দারুণ পন্থাও আপন করে নিলেন শ্রীলেখা। কিছু দিন আগে ইনস্টায় একটি ভিডিয়ো আপলোড করেন অভিনেত্রী।

সেখানে দেখা যাচ্ছে, শ্রীলেখা মিত্রের সাজগোজ শেষ। শাড়ির সঙ্গে মানানসই ব্লাউজ, খোলা চুল, মেক-আপে তৈরি তিনি। কিন্তু বেখায়ালে অভিনেত্রীর কালো ব্লাউজের ফাঁক দিয়ে কালো রঙা ব্রে;সিয়ারের স্ট্র্যাপ বেরিয়ে গিয়েছে।

তাঁর সাজ ঠিক আছে কিনা এই সহযোগীর কাছে এই তিনি, তখনই এক পুরুষ কণ্ঠ জানায়, ‘সবই ঠিক আছে। কিন্তু ;ব্রা;য়ের স্ট্র্যাপটা একটু দেখা যাচ্ছে।’

এ কথা শোনার সঙ্গে সঙ্গে শ্রীলেখা দ্রুত ব্লাউজ টেনে স্ট্র্যাপ ঢাকতে গিয়েও থেমে যান। চোখের ইশারাতেই তিনি বুঝিয়ে দেন, যা আছে তা ঠিকই আছে, অন্তর্বাস দেখা যাচ্ছে তা লুকানোর কী আছে!

শ্রীলেখার এই ভিডিয়োতেও কটূক্তির শেষ নেই! একাধিক নেটাগরিক অভিনেত্রীকে আক্রমণ শাণিয়েছেন, কেউ তাঁর স্ত;নের মাপ জানতে চেয়েছেন, কারুর কটাক্ষ, ‘শুধু ;ব্রা কেন! সব দেখাতে পারে’।

সোমবার আরও একটি ভিডিয়োতে মহিলাদের অন্তর্বাস নিয়ে সমাজে হামেশা চোখে পড়া এই ছুতমার্গ নিয়ে শ্রীলেখা একাধিক প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন।

তাঁর প্রশ্ন, ‘কেন ভাই ;ব্রা-টা কি মহিলাদের পোশাকের অংশ নয়? যদি আপনার কাউকে ভালো না লাগে, তাহলে এড়িয়ে যান।

কাউকে ছোট করবেন না, দেখবেন না… কোনও সমস্যা নেই। যদি আপনি নিজের লিঙ্গের মানুষকে সম্মান না করতে পারেন তাহলে অন্য লিঙ্গের কাছে সম্মান কী করে আশা করবেন?’

‘;ব্রা;য়ের স্ট্যাপ বেরিয়ে গেছে…ইজ্জত যাবে, মান যাবে.. ছিঃ ছিঃ’ এই ভাবনা বদলানোর সময় এসেছে সাফ বার্তা শ্রীলেখা মিত্রের।

বারবার বডি শে;মিং বা স্লা;ট শেমিং-এর বিরোধিতা করেছেন শ্রীলেখা, অভিনেত্রীর কথায়, ‘একুশ শতকেও যদি এত কিছু ট্যাবু নিয়ে চলতে হয়, এর থেকে লজ্জার আর কিছু নেই’।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *